ইসরায়েল ইস্যুতে বিতর্কে জড়িয়ে পড়া দুই নারী কংগ্রেস সদস্য কারা? আর কেন তাদের ইসরায়েলে ঢুকতে বাধা?

19 Aug 2019

যুক্তরাষ্ট্রের দুই নারী কংগ্রেস সদস্য রাশিদা তালেব এবং ইলহান ওমরের সফর বাতিল করে ইসরায়েল । কিন্তু ইসরায়েল প্রসঙ্গে এই দুই নারী কী বলেছেন যার ফলে তাদের প্রবেশাধিকার বাতিল করলো দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু?

২০১৮ সালের নভেম্বরের নির্বাচনে মার্কিন কংগ্রেসে বিজয়ী হওয়ার মধ্য দিয়ে রাশিদা তালেব এবং ইলহান ওমর আমেরিকার ইতিহাসে প্রথম মুসলিম নারী হিসেবে আসন জয়ের ইতিহাস রচনা করেন।

দুইজনই ডেমোক্রেট দলের সদস্য এবং তারা এই রাজনৈতিক দলটির প্রগতিশীল ধারার রাজনীতির সাথে দারুণভাবে মানানসই।

তাদের অবস্থান এলজিবিটি সম্প্রদায়ের মানুষদের অধিকারের পক্ষে, গর্ভপাত বৈধ করার আইন রক্ষায়, এবং তারা অভিবাসনের সমর্থনে উচ্চকণ্ঠ।

কিন্তু একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে তাদের অবস্থান কংগ্রেসে তাদের নিজ দল এবং রিপাবলিকান সদস্য সবার থেকে ভিন্ন, আর তা হলো: ইসরায়েল।


ইসরায়েল বর্জন বিতর্ক

এই দুজন নারীই ফিলিস্তিন ইস্যুতে ইসরায়েলে ভূমিকার কড়া সমর্থক। এবং কংগ্রেসে কেবলমাত্র এই দুইজন রাজনীতিবিদই জনসম্মুখে ফিলিস্তিন-নেতৃত্বাধীন 'ইসরায়েল বয়কট মুভমেন্ট'কে সমর্থন দিয়েছেন।

আর এটাই এখন তালেব এবং ওমরকে পরিণত করেছে আমেরিকার ইতিহাসে প্রথম কোনও নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে যাদের ইসরায়েলে প্রবেশের নিষেধাজ্ঞা দেয়া হল।

এই বিষয়টি তাদের কংগ্রেসরে অন্যান্য ৭২ জন সহকর্মীর বিপরীতে দাড় করিয়েছে যারা এই মাসের শুরুতে ইসরায়েলে সেদেশ সফর করে এসেছে- লবিস্টদের পৃষ্ঠপোষকতায় বার্ষিক অনুষ্ঠানে অংশ নিতে।

ইলহান ওমর এবং রাশিদা তালেব ফিলিস্তিন ভূ-খণ্ডে পূর্ব জেরুজালেম এবং পশ্চিম তীর সফরে যাওয়ার পরিকল্পনা করছিলেন। প্রকৃতপক্ষে কংগ্রেস সদস্য রাশিদা তালেবের জন্য এই সফর একটা পারিবারিক ভ্রমণও ছিল।

৪২বছর বয়সী এই নারী একজন ফিলিস্তিন-আমেরিকান আইনজীবী যিনি মিশিগান থেকে এসেছেন, তার দাদী এবং অন্যান্য আত্মীয়-স্বজন পশ্চিম তীরে বসবাস করছেন।

ইসরায়েল তার প্রবেশাধিকার প্রত্যাখ্যান করার পর, রাশিদা তালেব টুইটারে তার দাদীর একটি ছবি পোস্ট করেন এবং সেখানে লেখেন, "তার নাতনীকে যিনি একজন মার্কিন কংগ্রেস সদস্য তাকে নিষেধাজ্ঞা দেয়ার ইসরায়েলের সিদ্ধান্ত একটি দুর্বলতার লক্ষ্মণ কারণ প্রকৃত সত্য হচ্ছে ফিলিস্তিনে যা ঘটছে তা ভয়ানক"।

নাগরিক অধিকারের লড়াই
রাশিদা তালেব একটি পোস্ট রি-টুইটও করেন যেখানে যে বিষয়টি উঠে আসে, দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যাপার্থিড বা বর্ণবাদী সরকারের পক্ষ থেকে সুপরিচিত আফ্রিকান-আমেরিকান অধিকার কর্মী এবং রাজনীতিবিদ জেসি জ্যাকসনের প্রবেশাধিকার নাকচ করার বিষয়টি।

রাশিদা তালেবকে একজন এন্টি-সেমেটিক বা ইহুদী-বিদ্বেষী হিসেবে তার বিরুদ্ধে সমালোচনা করায় ইসরায়েলকে একটি "বর্ণবাদী" দেশ হিসেবে অভিহিত করেন।

এই বিতর্কে তার সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সহচর মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের কংগ্রেসওম্যান ইলহান ওমর, যিনি ৩৮ বছর বয়সী একজন সোমালি বংশোদ্ভূত আমেরিকান এবং হিজাব পড়েন। ১৯৯৫ সালে একজন শিশু শরণার্থী হিসেবে আমেরিকায় প্রবেশ করেন ইলহান।

তার নিজের এবং রাশিদা তালেবের ওপর ইসরায়েলে ঢোকার বিষয়ে এই নিষেধাজ্ঞাকে তিনি দেখছেন "একটি অপমান" হিসেবে। তিনি বলেন, এটা বিদ্রূপাত্মক যে ইসরায়েল, যে দেশটি মধ্যপ্রাচ্যে নিজেকে "একমাত্র গণতান্ত্রিক" হিসেবে দাবি করে, তারাই এমন একটি সিদ্ধান্ত নিল যা কিনা "গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের অপমান"।

ইলহান ওমর কংগ্রেসে যোগ দেয়ার পর থেকেই ইসরায়েল প্রসঙ্গে তার মতামত আলোচনা আসে। এই বছরের শুরুর দিকে, তিনি ইসরায়েল-পন্থী লবি গ্রুপ আইপ্যাক(দি আমেরিকান ইসরায়েল পাবলিক অ্যাফেয়ার্স কমিটি)কে ইঙ্গিত করে একটি পোস্ট টুইট করে লেখেন যে, তারা ইসরায়েল পন্থী এজেন্ডা বাস্তবায়নে আর্থিক প্রণোদনা কাজে লাগাচ্ছিল।

তার মন্তব্যকে ঘিরে তার সমর্থক এবং সমালোচকদের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় বাকযুদ্ধ শুরু হয়ে যায় মার্কিন রাজনীতিতে আইপ্যাকের ভূমিকা নিয়ে এবং ইলহান ওমর ইহুদীদের প্রতি বিদ্বেষী ছিলেন কি-না তা নিয়ে।

ইহুদী বিদ্বেষী অভিযোগ
তিনি পরে অবশ্য "দ্ব্যর্থহীণভাবে ক্ষমা" প্রার্থনা করে টুইট করেন, ইহুদী-বিদ্বেষী বেদনাদায়ক ইতিহাস সম্পর্কে তাকে অবহিত করার জন্য সহকর্মীদের প্রতি ধন্যবাদ জানান এবং বলেন যে, তার উদ্দেশ্য ছিল লবিস্টদের সমালোচনা করা, ইহুদীদের নয়।

ইহুদি-বিদ্বেষী টুইট করার অভিযোগে তীব্র সমালোচনার তোপের মুখে পড়ে সোমালিয়-আমেরিকান এই রাজনীতিবিদের জন্য এটা ছিল দ্বিতীয়বারের মত ক্ষমা চাওয়ার ঘটনা।

ফিলিস্তিনিদের বক্তব্য, ইসরায়েল বর্জনের আন্দোলন তাদের বৈধ নিরস্ত্র প্রতিরোধ, কিন্তু ইসরায়েল তা মানতে রাজী নয়
কংগ্রেসে যোগ দেয়ার পর তার ২০১২ সালে করা একটি পোস্ট আবার সামনে চলে আসে যেখানে তিনি লিখেছিলেন, "ইসরায়েল বিশ্বকে সম্মোহিত করে রেখেছে, আল্লাহ মানুষকে জাগ্রত করুন এবং তাদের সাহায্য করুন ইসরায়েলর সমস্ত মন্দ-কাজ যেন তারা দেখতে পারে"।

এই টুইটে গাযার বিরুদ্ধে ইসরায়েলের অপারেশন পিলার অব ডিফেন্স অভিযানের সাথে মিলে যায় যে অভিযানে জাতিসঙ্ঘের হিসেবে ছয়জন ইসরায়েলি এবং ১৫৮জন ফিলিস্তিন মারা যায়। এর মধ্যে ৩০ জন শিশু ১৩ জন নারী ।

এই দুজন নারী কংগ্রেস সদস্যের সবচেয়ে শক্তিশালী এবং সরব সমালোচক হলেন স্বয়ং প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, যিনি তাদের প্রবেশাধিকার নাকচ করার জন্য ইসরায়েলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন।

এই দুজন নারীকে তিনি "একটি কলঙ্ক" বলে আখ্যা দেন এবং বলেন, " ইসরায়েল যদি ওমর এবং তালেবকে সফরের অনুমোদন দেয় তাহলে তা হবে বিশাল দুর্বলতার প্রদর্শন"।

টুইটারে মিস্টার ট্রাম্প লেখেন, "তারা ইসরায়েল এবং সকল ইহুদীদের ঘৃণা করে এবং তাদের মানসিকতা পরিবর্তনের জন্য কিছুই বলার বা করার নেই"।
নারী কংগ্রেস সদস্য দুজনই ইসরায়েল বয়কটের বা বর্জনের আহ্বানকে তাদের বিরুদ্ধে 'ইহুদী-বিদ্বেষী' হিসেবে দেখিয়ে যে অভিযোগ তোলা হচ্ছে তা নাকচ করেছেন।

বয়কট-বিরোধী আইন
ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, মার্কিন নারী কংগ্রেস সদস্য দুজনের সফর বাতিলের ক্ষেত্রে বয়কট বিরোধী আইনের ব্যবহার করা হয়েছে।

২০১৭ সালে নেতানিয়াহু সরকারের পাশ করা এই আইনের অধীনে , কোনও বিদেশী ইসরায়েলকে কেন্দ্র করে যে কোনধরনের বয়কটের আহবান জানালে -সেটা অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক কিংবা শিক্ষাগত- যেমনই হোক না কেন-তাহলে তার এন্ট্রি ভিসা নাকচ করা হবে।

ইসরায়েলের অস্তিত্বের জন্য এই বয়কট মুভমেন্টকে একটি হুমকি হিসেবে অভিযোগ করে দেশটি, কংগ্রেসের উভয় শিবিরের মার্কিন রাজনীতিবিদরাও এই মতকে ব্যাপকভাবে ধারণ করেন।

নারী কংগ্রেস সদস্য দুজনই ইসরায়েল বয়কটের বা বর্জনের আহ্বানকে তাদের বিরুদ্ধে 'ইহুদী-বিদ্বেষী' হিসেবে দেখিয়ে যে অভিযোগ তোলা হচ্ছে তা নাকচ করেছেন।


সূত্র: বিবিসি বাংলা লিংক


BCS PRELIMINARY & WRITTEN

Learn from scratch to become a first class officer.


BANK JOBS

A huge collection of Bank Job Questions to guide you through.


NTRCA

Easy and simple way to succeed.


GOVT. JOBS

StudyPress has solutions of ALL previous govt job tests.


MBA ADMISSION TEST

Worried about Math and English? Try Studypress


CURRENT NEWS

Every Important News updates for Job Preparation.


MISTAKE LIST

Something you will find nowhere else, but you need the most.


ALL PREVIOUS QUESTION & SOLUTIONS

The test was held yesterday? Solution is here!!


Login Now

Comment with facebook