Daily Star Editorial (05/06/17)

Daily Star Editorial (05/06/17)

05 Jun 2017

Why are citizens paying so much more? No justifiable reason to keep prices up The Bangladesh Petroleum Corporation's (BPC) own data shows that it is going to make a massive profit this fiscal year. In the last three years, the BPC has made a profit of Tk. 20,500 crore by charging citizens high prices for fuel. Yet, despite repeated calls from economists, businesses, etc. to lower domestic energy prices, the authorities have repeatedly come up with one excuse after another to keep prices high, even when international prices have been low. সাধারণ জনগণ কেন বেশি দামে কিনছে? মূল্য বৃদ্ধির কোন যথাযথ কারণ নেই  বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের নিজস্ব তথ্য অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে যে তারা বর্তমান অর্থবছরে প্রচুর লাভ করবে। গত তিন বছরে, জনগণের উপর অধিক মূল্যে জ্বালানি বিক্রি করে বিপিসি লাভ করেছে ২০,৫০০ কোটি টাকা। এরপরও দেশের ভেতর জ্বালানি শক্তির দাম কমানোর বারংবার ডাকা ব্যবসায়ীদের এবং অর্থনীতিবিদের আহ্বানে সাড়া না দিয়ে কর্তৃপক্ষ চড়ামূল্য হাকার পেছনে একটির পর একটি কারণ দেখিয়েই যাচ্ছে, যেখানে আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্য রয়েছে অনেক কম। 

Details

 ডেইলি স্টার এডিটোরিয়াল

ডেইলি স্টার এডিটোরিয়াল

03 Jun 2017

Editorial, Daily Star 03/06/17 Big budget big deficit No direction on employment generation বড় বাজেট বড় ঘাটতি কর্মসংস্থান বাড়ানোর জন্য কোন দিক নির্দেশনা নেই Big budget is inevitable for a developing country, but when the revenue earning is heavily reliant on value added tax and supplementary duty, as this budget is, it is the people across the board that will have  to bear the brunt of it. The NBR has an uphill task too, given that its target this year has been increased by 30 percent from last year's target, which was not fully met. বড় বাজেট একটি উন্নয়নশীল দেশের জন্য অপরিহার্য, কিন্তু যখন  রাজস্ব আয়   ট্যাক্স এবং সম্পূরক শুল্কের  উপর বেশী পরিমান নির্ভরশীল হয়, এটা এমন বাজেট যে,সবাইকেই এর বোঝা বহন করতে হবে। এনবিআর এর  একটি চূড়ান্ত কাজও আছে, এই বছরের লক্ষ্যমাত্রা গত বছরের লক্ষ্য থেকে ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি করা হয়েছে, যা সম্পূর্ণরূপে পূরণ হয়নি।  

Details

#
নারীর প্রতি সহিংসতার অর্থনৈতিক প্রভাবঃ অ্যাম্বাসাডর ফর চেঞ্জ (প্রথম আলো)

নারীর প্রতি সহিংসতার অর্থনৈতিক প্রভাবঃ অ্যাম্বাসাডর ফর চেঞ্জ (প্রথম আলো)

08 Mar 2017

নারীর প্রতি সহিংসতার কারণে যেসব ক্ষতি সাধিত হয়, তা সামাল দেওয়া যেকোনো দেশের জন্যই  জটিল । বাংলাদেশে নারীর প্রতি  সহিংসতার কারণে যে ক্ষতি হয়, তা এ দেশের মোট দেশজ  উৎপাদনের  আনুমানিক ২ দশমিক ১ শতাংশ। সহিংসতা, প্রতিদিন একটি মেয়েকে বিদ্যালয়ে যেতে এবং একজন নারীকে চাকরি করতে বাধা দেয়। আর এর ফলে তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে তাদের আপোস করতে হয় এবং একটি গোষ্ঠীর অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয়। যারা সহিংসতার শিকার হয় তারা জীবনে শারীরিক ও মানসিক ক্ষত নিয়ে বেঁচে থাকে এবং সামাজিক ও আইনি সহায়তাকে সংগ্রাম করতে হয় তাদের সাহায্য করার জন্য। দেশের অর্ধেক জনসংখ্যা যদি অমূল্য সম্ভাবনা হিসেবে অর্থনীতিতে অবদান না রাখতে পারে, তাহলে মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা অর্জনের দিকে বাংলাদেশ কি তার যাত্রা অব্যাহত রাখতে পারবে? নারী ও পুরুষের সমতুল্লতা  অর্জন করা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সর্বোচ্চ অগ্ৰাধিকারগুলোর মধ্যে একটি। 

Details