15 Sep 2015


ক্যাডার চয়েস অনেকাংশে পারসোনালিটি নির্ভর। চলাফেরা, রুচিবোধ, চিন্তার গণ্ডি, ভাবনার রকমফের ক্যাডার পছন্দের ক্ষেত্রে নিয়ামক হিসেবে কাজ করে। চলুন দেখা যাক আপনার রুচির সাথে এডমিন কতটুকু ম্যাচ করে!

কেন প্রশাসন আপনার প্রথম পছন্দ হওয়া উচিত?

১। এক প্রশাসন সার্ভিস আপনাকে সারাজীবনে মিনিমাম ১৫ টি চাকুরী করার অভিজ্ঞতা দেবে। বৈচিত্র্য এই ক্যাডার এর সবচেয়ে বড় আকর্ষণ। আপনার একটা পোস্টিং থেকে অন্য পোস্টিং হবে আলাদা। অন্য সকল ক্যাডার নিজের কাজটা নিয়েই থাকবে সারাজীবন। কেবল এডমিন কে সকল কাজেই আপনি পাবেন। ম্যাজিস্ট্রেট, এ সি ল্যান্ড, ইউ এন ও, ডি সি, সহকারী সচিব থেকে সিনিয়র সচিব হিসেবে মন্ত্রনালয়ে, সরকারের সকল অধিদপ্তর, পরিদপ্তরে, সরকারের সকল প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে, সব কর্পোরেশন গুলোর প্রধান হিসেবে ( পাটকল, চিনিকল, মিল্ক ভিটা ইত্যাদি) আপনি পোস্টিং পাবেন। সকল ফরেন কন্সুলার অফিস এ, এফ ডি সি তে সহ সরকারের সব প্রতিষ্ঠানের উপরের পদ গুলোতে আপনার পদচারনা থাকবে। আমি নিজেই অনেক পরে এসে জেনেছি যে বেসামরিক বিমান পরিবহনের ৪ টিমেম্বার পদ এডমিন থেকে যায়। সিটি কর্পোরেশন, জেলাপরিষদ এডমিন ক্যাডার চালায়। অতি আশ্চর্যের বিষয় এই যে প্রতিটা ক্যান্টনমেন্ট এ ক্যান্টনমেন্ট এক্সিকিউটিভ নামের একটা পোস্ট আছে এডমিনের যে ক্যান্টনমেন্ট এর ভিতরের স্কুল, কলেজ, ইনফ্রাস্ত্রাকচার এসবের অভিভাবক। বলা হয় চাদে যদি বাংলাদেশ সরকার কোন শাখা খুলে তবে প্রথমে একটা এডমিন পোস্ট সৃষ্টি করে পরে অন্য ভাবনা!

 

২। এই ক্যাডার এর অফিসার গন ইদানিংকালে গণ হারে ফরেন ডিগ্রি নিচ্ছেন। ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া সহ ইউরোপের দেশগুলোতে সিনিয়র সহকারী সচিব লেভেলের প্রায় সবারই কোন না কোন ইউনিভার্সিটির মাস্টার্স ডিগ্রি আছে।

৩। এই ক্যাডার এর প্রধান কাজ হল অন্য সকল ক্যাডার অফিসার দের মাঝে সমন্বয় সাধন। জেলায় ডি সি রা সকল বিভাগের মাঝে সেতুবন্ধের কাজ করেন। ভাল ব্যাবহার যদি করেন, একটু যদি হেসে কথা বলেন তবে আপনি মনোযোগের কেন্দ্রে থাকবেন এ কথা নিশ্চিত বলা যায়। আর সবচেয়ে বড় কথা কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে উপজেলায়, জেলায় ও বিভাগে আপনার অবস্থান আপনাকে একটু গর্ববোধ করার অধিকার দিতেই পারে। ইউ এন ও ও ডি সি গন সরাসরি মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের তত্ত্বাবধানে থাকে ফলে সরকারের পলিসি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন ও পলিসি ফিডব্যাক এডমিন অফিশিয়ালরাই দেন।

৪। সরকারের সচিবালয় যন্ত্র মূলত এডমিন ক্যাডার দিয়ে পরিচালিত। আর সচিবালয় জিনিসটা কি আশা করি সবাই বুঝেন। সরকারের উপসচিব ও তদূর্ধ্ব কর্মকর্তাগণ ৭৫ ভাগ কেবল এডমিন থেকে নিযুক্ত হইবেন এবং বাকি ২৫ ভাগ অন্য সকল ক্যাডার এর সিনিয়র অফিসার গনের জন্য উন্মুক্ত থাকিবে। রাজনৈতিক দিক থেকে দেশকে পরিচালিত করেন মন্ত্রী মহোদয়গণ। দেশের ভাগ্য নির্ধারণ করেন তাঁরা। আর এই প্রক্রিয়ায় সবচেয়ে নিবিড় ভুমিকা দাপ্তরিক প্রধান ও মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে সচিব ও সিনিয়র সচিবের। কেউ যদি নিজেকে দেশের পলিসি তৈরিতে যুক্ত দেখতে চান, স্বপ্ন দেখেন রুপান্তরের তিনি প্রশাসনের অংশ হওয়ার আগ্রহ দেখাতে পারেন।

৫। দিন যাবে আপনার কাজের পরিধি বাড়বে। চাকুরীতে থাকাকালে আপনি গুরুত্ব পাবেন, পাবেন অবসরের পরও। সরকারের সাংবিধানিক সংস্থাগুলো তে বুড়ো বয়সে আপনার প্রাধিকার থাকবে।বর্তমানে দুর্নীতি দমন কমিশন, তথ্য কমিশন, নির্বাচন কমিশনের প্রধানগন এডমিনের প্রাক্তন সচিব ছিলেন। পত্রিকায় কলাম লিখবেন, দেশের ভূত ভবিষ্যৎ নিয়ে মত দিবেন, সরকারকে পরামর্শ দিবেন আপনি। কারন সারাজীবন ব্যাপিয়া আপনি তো এই কাজেই নিয়োজিত ছিলেন।

৬। রাজনীতি না করেও কেউ যদি রাজনীতিবিদদের মত গণ মানুষের কাছে যেতে চান তাঁকে এডমিন চয়েস দিতেই হবে। একমাত্র ক্যাডার এডমিন যার বিচরন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী হতে সমাজের সকল বর্ণের, গোত্রের মানুষের কাছে। ধনী দরিদ্র, ভাল খারাপ, সকল চাকুরীজীবী, ব্যাবসায়ি, সুশীল সমাজ সবার মাঝে মিশে থাকার এক দুর্লভ সুযোগ। জুতো সেলাই থেকে চণ্ডীপাঠ আপনার বিচরনের মাঠ। ঠিক এ কারনেই অনেক ইউ এন ও ও ডি সি র বিদায়ে মানুষকে কাঁদতে দেখেছি আমি।

৭। সম্মানের জায়গাটা তো ভুলেই গিয়েছিলাম। এখনও অনেক কিছুর পরেও উপজেলায় ইউ এন ও সবচেয়ে বেশি ফোকাস এ থাকেন, জেলায় ডি সি। আমার ৪ বছরের অভিজ্ঞতায় দেখেছি জেলায় কোন বড় আয়োজন সম্পূর্ণ হয় না ডি সি র উপস্থিতি ছাড়া। ধর্মীয়, সামাজিক, রাষ্ট্রীয়, ব্যাক্তিক যেকোনো অনুষ্ঠানে ডি সি ও ইউ এন ও র উপস্থিতি সকলের আগে কাম্য। এ সার্ভিস এর কিংবদন্তি তুল্য গ্ল্যামর এ একটু টান পড়েছে সত্য কিন্তু তবুও আমি নিজে তো এখনও বিকল্প দেখি না!

৮। প্রমোশন সম্ভাবনা এখন অনেক বেড়েছে আমাদের। ৬ বছরে ইউ এন ও হয়ে যাওয়াটা খারাপ না কিন্তু। কিছু বড় ব্যাচ অবসরে গেলে ১০ বছরে ডেপুটি সেক্রেটারি হওয়ার সম্ভাবনা আমরা দেখি। সরকারি ও স্বায়ত্ত শাসিত প্রতিষ্ঠানের সকলের আপনার স্ট্যাটাস পেতে চাইবে দেখেও ভাল লাগবে নিশ্চিত। যেমন অমুক এই পদে আছে যা কিনা উপসচিব পদমর্যাদার পদ!!

৯। জুডিশিয়ারি নাই বলে অনেকে হাহাকার করেন। কিন্তু মোবাইল কোর্ট এর অধীনে তাৎক্ষনিক ২ বছর পর্যন্ত সাজা দিয়ে প্রায় সব সামাজিক অপরাধের বিচারের ভার এই দেশ আপনার কাঁধে দিয়েছে। দেশের মানুষকে মোবাইল কোর্ট খাবারের বিষয়ে সচেতন করে শাস্তি দিয়ে বিপ্লব সাধন করেছে। এক মুনির চৌধুরী ও রোকন উদ দোলার কল্যাণে মানুষ এক্সপায়ার ডেট দেখে খাদ্য সামগ্রী কিনতে শিখেছে, ইভটিজিং রোধ, নদী খাল ভরাট রোধ, বাল্যবিবাহ ঠেকানো, ফরমালিন এর অভিশাপ ও মাদক মুক্ত দেশ গড়ার অভিযানে এই মোবাইল কোর্ট এখন এক মুক্ষম অস্ত্র।

১০। সরকারের যেকোনো অগ্রাধিকার প্রকল্প বাস্তবায়ন কে করবে? জেলা ও উপজেলা প্রশাসন। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার কাজ কার হাতে সপে দেয়া হবে? প্রশাসনের হাতে। স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ওয়েব পোর্টাল কে তৈরি করেছে ? ডি সি অফিস। সারা দেশে ৫০০০ ইউনিয়ন ডিজিটাল সার্ভিস সেন্টার কাদের সক্ষমতায় তৈরি হয়েছে? সহকারী কমিশনার, এ ডি সি, ডি সি, ইউ এন ও র হাত ধরে। সকল সরকারি অফিস ডিজিটাল প্রযুক্তির আওতায় আনার কাজ কে করছে ? ডি সি অফিস। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হতে মাঠ প্রশাসনে কারা নিরন্তর কাজ করে চলেছে? এ টু আই প্রকল্প কারা গড়েছে? এই বিশাল কর্মযজ্ঞের অংশীদার হতে চাইলে এডমিন এ আসুন!

কেন প্রশাসন আপনার প্রথম পছন্দ হওয়া উচিত নয়?

১। কাজের প্রেসার ও প্রটোকল কখনও আপনাকে পাগল বানিয়ে দেবে এই সার্ভিস এ। আর্মির বাইরে সম্ভবত সবচেয়ে বেশি ফর্মালিটি এডমিন সার্ভিস মেনে চলে। জুনিয়র লেভেলে প্রায় দম বন্ধ হয়ে আসতে পারে। আমার নিজের ও হত এক সময়। ছুটি ও অবসর ভুলে গেলেই ভাল। সরকারি ছুটি ও শুক্র শনি বার আপনার ইচ্ছা মত ছুটি অবশ্যই পাবেন না। ডি সি স্যার এর মর্জির উপর আপনাকে ভরসা করতে হবে। ইউ এন ও/ ডি সি হলে অথবা অন্য অনেক পোস্ট এ থাকা কালে ঈদ ও আপনার জব ষ্টেশন এ করতে হতে পারে।


২। আপনার পালিত দায়িত্তের তুলনায় প্রশংসা আপনি কখনই পাবেন না। বরঞ্চ পান থেকে চুন খসলে ঝাড়ি নিশ্চিত। এডমিন অফিসারদের ভুল করার বিলাসিতা দেখানো যায় না। বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই গুরুগম্ভীর পরিবেশ থাকবে আপনার আশপাশে।

 

৩। যেখানেই থাকুন না কেন আপনি সবসময় ফোকাস এ থাকবেন বলে সমালোচনা সবচেয়ে বেশি আপনার। আপনি ৫ টাকা ঘুষ খাবেন তো জাতীয় পত্রিকার নিউজ। আপনার ব্যাচেরই কোন কোন ক্যাডার এর অফিসার মাসে অকল্পনীয় ঘুষ খাবেন কিন্তু কোন নিউজ হবে না, শব্দ ও হবে না। একজন জেলা প্রশাসক ও যদি ২ বছর নিয়মমাফিক ঘুষ খান তবু অনেক ক্যাডার এর জুনিয়র লেভেলের অফিসার এর এক বছরের ঘুষের সমপরিমান হবে না। কিন্তু আপনি যদি ঘুষ নাও খান তবু পরিস্থিতির কারনে খবরের শিরোনাম হয়ে যাবেন! এবং এডমিন সার্ভিস এ জব করার কারনে আপনি অত্যন্ত ভদ্রলোক হওয়ার পর ও বন্ধু পাবেন না তেমন! কারন আপনি হবেন অন্য অনেকের কাবাবে হাড্ডির মত অনাহুত।

 

৪। রাজনৈতিক রেষারেষির সবচেয়ে বড় বলি হয় এডমিন ক্যাডার অফিসাররা। ও এস ডি, বাজে পোস্টিং, বদলি, মানসিক প্রেসার এসব সহজভাবে নেয়া শিখতে হবে। এবং রাজনিতিবিদগন বেশীর ভাগ সময়েই আপনার ঘাড়ে বন্দুক রেখে শিকারে বের হবেন। নেতা ও পাতি নেতা সামলানো এই সময়ে এডমিন সার্ভিসের সামনে নতুন এক চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিয়েছে। এখন এসব কিছু নিয়ে ভাবুন। বিবেচনায় নিন। যদি নেতৃত্ব দিতে চান, চ্যালেঞ্জ নিতে চান, সাহস থাকে, রিস্ক নেয়ার, কষ্ট করার ও দেশের জন্য কিছু করার তাগিদ অনুভব করেন তবেই এডমিনে আসুন।

 

Admin Service can sometimes be very painful, stressful, challenging, frustrating but i can bet, it can never be boring. And We the admin officers are here to lead the country from the front , towards greater development equipped with greater insights, modern outlook and knowledge base.

Advance Welcome to Bangladesh Administrative Service (BAS) !!!

 

 

Saiful Islam Rimel
Assistant Commissioner (Land) & Executive Magistrate,
Sadar Circle,Chittagong
Government of the People's Republic of Bangladesh
28 th BCS


BCS PRELIMINARY & WRITTEN

Learn from scratch to become a first class officer.


BANK JOBS

A huge collection of Bank Job Questions to guide you through.


NTRCA

Easy and simple way to succeed.


GOVT. JOBS

StudyPress has solutions of ALL previous govt job tests.


MBA ADMISSION TEST

Worried about Math and English? Try Studypress


CURRENT NEWS

Every Important News updates for Job Preparation.


MISTAKE LIST

Something you will find nowhere else, but you need the most.


ALL PREVIOUS QUESTION & SOLUTIONS

The test was held yesterday? Solution is here!!


Login Now